অনলাইনে ই পাসপোর্ট করার নিয়ম, মোবাইলে ই পাসপোর্ট আবেদন করার নিয়ম

অনলাইনে ই পাসপোর্ট করার নিয়ম, মোবাইলে ই পাসপোর্ট আবেদন করার নিয়ম

ই পাসপোর্টের আবেদনের সকল নিয়ম
ই পাসপোর্টের আবেদনের সকল নিয়ম

আমাদের দেশে একটি কথা প্রচলিত আছে দালাল ছাড়া পাসপোর্ট করা যায় না। তবে এখন আর সেই দিন নেই বর্তমানে আপনি চাইলে আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ঘরে বসেই সম্পূর্ণ দালাল ছাড়া ই পাসপোর্ট করে নিতে পারবেন।

পাসপোর্ট অফিস ডিজিটাল করার পর সরকারের সবথেকে কার্যকারী প্রদক্ষেপ হলো ই পাসপোর্ট। ই পাসপোর্ট এর কাজ সম্পূর্ণ অনলাইনের উপর নির্ভর করে বিদায় এর জন্য কোন প্রকার দালালের প্রয়োজন হয় না বরং দালাল ছাড়াই ই পাসপোর্ট করা যায়। আজকে এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে আজ আমরা আপনাদের জানাব অনলাইনে ই পাসপোর্ট করার নিয়ম কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

অনলাইনে ই পাসপোর্ট করার নিয়ম

অনলাইনে ই পাসপোর্ট করার জন্য আপনাকে প্রথমেই Bangladesh e-Passport Application Portal প্রবেশ করতে হবে অথবা আপনি আপনার ফোন থেকে Chrome Browser ব্যবহার করে সরাসরি www.epassport.gov.bd এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে সেখান থেকে Apply Online বাটনে ক্লিক করে সম্পূর্ণ ধাপ গুলো অনুসরণ করে আপনি একটি ই পাসপোর্ট এর আবেদন করে ফেলতে পারবেন। ই পাসপোর্ট এর সকল ধাপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা নিচে করা হলো।

ই পাসপোর্টের আবেদন করতে কি কি লাগে?

ই পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে কোন ডকুমেন্টস অনলাইনে আপলোড করার প্রয়োজন পরে না। শুধু আপনার হাতে আপনার এনআইডি থাকলেই সেই এনআইডি অনুযায়ী ই পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

তবে ই পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করার পর আপনার পছন্দ কৃত পাসপোর্ট অফিসে যাচাই বাছাইয়ের জন্য কিছু কাগজ পত্র জমা দিতে হয়। আবেদনের সামারি কপি, আবেদন কপি, চালান কপি, ভোটার আইডি কার্ড সহ আরো যে যে কাগজপত্র ই পাসপোর্টের জন্য পাসপোর্ট অফিসে জমা করতে হয় তার বিস্তারিত তালিকা নিচে দেওয়া হলো।

১/ Application Summary ( আবেদনের সারাংশ কপি)।

২/ জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধন কপি ( NID or BRC)

৩/ আবেদন কপি ( Application Copy)।

৪/ নাগরিকত্ব সনদপত্র।

৫/ পেশা প্রমানের জন্য নির্ধারিত ডকুমেন্টস।

৬/ NOC অথবা জিও ( এটা শুধুমাত্র যারা অফিসিয়াল পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করবে তাদের জন্য প্রযোয্য)।

৭/ পিতা মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র ( শুধু মাত্র অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য)

৮/ ইউটিলিটি বিল পে স্লিপ বা বিদ্যুৎ বিলের কাগজ।

নতুন ই পাসপোর্টের জন্য উপরে উল্লেখিত কাগজপত্রের তালিকার বাহিরে আর কোন কিছুর প্রয়োজন হয় না।

ই পাসপোর্ট আবেদন ফি কত?

মূলত পাসপোর্টের ধরণ অনুযায়ী এর মূল্য নির্ধারিত হয়ে থাকে। একটি ই পাসপোর্টের পৃষ্ঠা ডেলিভারির ধরন অনুযায়ী ই পাসপোর্টের ফি নির্ধারিত হয়। সর্বনিম্ন ৪০২৫ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১৩৮০০ টাকার মধ্যে ই পাসপোর্ট ফি ধার্য করা হয়। ই পাসপোর্টের জন্য এর বাহিরে আর কোন ফি দিতে হয় না। ই পাসপোর্টের আবেদন নিজে নিজে করা যায় কেউ যদি নিজে আবেদন করতে না পারে তাহলে অন্য কারো থেকে বা বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকান থেকে চাইলে আবেদন করে নিতে পারবে এর জন্য অতিরিক্ত ১০০ টাকা খরচ হতে পারে।

ই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে?

৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট করতে রেগুলার ডেলিভারিতে ৪০২৫ টাকা , এক্সপ্রেস ডেলিভারি ৬৩২৫ টাকা ও সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারিতে ৮৬২৫ টাকা লাগে।

৪৮ পৃষ্ঠার ১০ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট করতে রেগুলার ডেলিভারিতে ৫৭৫০ টাকা, , এক্সপ্রেস ডেলিভারি ৮০৫০ টাকা ও সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারিতে ১০৫০ টাকা লাগে।

৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট করতে রেগুলার ডেলিভারিতে ৬৩২৫ টাকা, , এক্সপ্রেস ডেলিভারি ৮৬২৫ টাকা ও সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারিতে ১২৭৫ টাকা লাগে।

৬৪ পৃষ্ঠার ১০ বছর মেয়াদি ই পাসপোর্ট করতে রেগুলার ডেলিভারিতে ৮০৫০ টাকা, , এক্সপ্রেস ডেলিভারি ১০৩৫০ টাকা ও সুপার এক্সপ্রেস ডেলিভারিতে ১৩৮০০ টাকা লাগে।

See also  পাসপোর্ট সংশোধন করার নিয়ম কি, Passport Correction In Bangladesh

এইতো গেল পাসপোর্ট ফি এখন আপনাদের জানাব কি করে নতুন ই পাসপোর্টের আবেদন করবেন তার বিস্তারিত।

ই পাসপোর্টের আবেদন করার নিয়ম ধাপে ধাপে

ই পাসপোর্টের জন্য আপানকে অনলাইনে আবেদন পত্রজমা দিতে হবে তার জন্য প্রথমে আপনি কোন স্থান থেকে পাসপোর্টের আবেদন করতে চান সেই স্থানে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস আছে কি না সেই সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিবেন। ই পাসপোর্টের আবেদন করতে যে যে ধাপ গুলো অনুসরণ করতে হয় তার বিস্তারিত তালিকা দেওয়া হলো।

১/ e-Passport Portal ওয়েবসাইট ভিজিট।

২/ ই পাসপোর্ট portal এ নতুন পাসপোর্টের আবেদনর জন্য একটি নতুন একাউন্ড বানানো।

৩/ পাসপোর্টের ধরণ নির্বাচন।

৪/ Personal Information ( ব্যাক্তিগত তথ্য)

৫/ ঠিকানা।

৬/ আইডি ডকুমেন্টস।

৭/ পিতা মাতার তথ্য।

৮/ স্পাউস ইনফরমেশন।

৯/ ইমারজেন্সি কন্টাক্ট।

১০/ পাসপোর্ট অপশন।

১১/ ডেলিভারির ধরন।

১২/ ই পাসপোর্ট ফি প্রদান।

১৩/ আবেদন কপি ও অ্যাপ্লিকেশন সামারি প্রিন্ট।

১৪/ ই পাসপোর্ট সংগ্রহ।

উপরের উল্লিখিত ধাপ সমূহ অনুসরণ করে খুব সাহজেই ই পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা যায়। নিচে ই পাসপোর্টের আবেদনের সকল ধাপসমূহের বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

e-Passport Portal ওয়েবসাইট ভিজিট

ই পাসপোর্টের আবেদনের জন্য প্রথমে আপনাকে ই পাসপোর্ট পোর্টালে ভিজিট করতে হবে তার জন্য আপনাকে e-passports application লিখে Google এ search করলেই প্রথমে www.epassport.gov.bd সাইটে প্রবেশ করতে হবে। তারপর ওয়েবসাইটের হোম পেইজ থেকে Apply online বাটনে ক্লিক করতে হবে।

Apply online এ ক্লিক করার পর আপনার সামনে নতুন একটি পেইজ ওপেন হবে।

E-Passport এর জন্য একাউন্ট ওপেন

ই পাসপোর্টের আবেদনের জন্য তাদের পোর্টালের সার্ভারে আপনার একটি একাউন্ট থাকা লাগবে। তারজন্য আপনাকে প্রথমে কই থেকে পাসপোর্টের আবেদন করতে চান তা নির্বাচন করতে হবে। বাংলাদেশ থেকে হলে Are you applying from Bangladesh এর স্থলে YES নির্বাচন করুন এবং বিদেশ থেকে হলে No সিলেক্ট করে পরবর্তী ধাপে যান।

এই ধাপে আপনি বাংলাদেশের যে পাসপোর্ট অফিস থেকে আপনি পাসপোর্ট করাতে চান সেই পাসপোর্ট অফিস সিলেকশন করুন এবং আপনার পুলিশ স্টেশন নির্বাচিত করে Continue বাটনে ক্লিক করুন।

এবার আপনার নিজের ইমেইল আইডি সেই সাথে আপনার একাউন্টের জন্য একটি ছয় সংখ্যার পাসওয়ার্ড দিয়ে ক্যাপচা পূরণ করে Continue বাটনে ক্লিক করুন। সবকিছু ওকে হয়ে গেলে পাসপোর্ট সার্ভারে আপনার একটি একাউন্ট ওপেন হয়ে যাবে। এবার আপনার ইমেইল আইডিটি ভেরিফিকেশন করে নিন তা জন্য আপনার ইমেইলের ইনবক্সে পাসপোর্ট অধিদপ্তর কতৃক পাঠানো লিংকে ক্লিক করুন তাহলেই আপনার ইমেইল টি ভেরিফিকেশন হয়ে যাবে।

সবকিছু ঠিক থাকলে আপনি এবার পরবর্তী ধাপে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত।

পাসপোর্টের ধরণ নির্বাচন

আপনার একাউন্টে লগইন করার পর Apply for new e passport এ ক্লিক করে কোন ধরনের পাসপোর্ট বানাতে চান তা সিলেক্ট করুন। আপনার নিজের জন্য হলে Ordinary Passport আর অফিশিয়াল পাসপোর্ট হলে Official সিলেক্ট করতে হবে। তারপর Continue বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী ধাপে যেতে হবে।

ব্যক্তিগত তথ্য ( Personal Information)

এই ধাপে পাসপোর্ট ফরমে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সমূহ ইনপুট করতে হবে। পাসপোর্টটি যদি আপনার নিজের জন্য করে থাকে তাহলে উপর থেকে Apply for myself অপশনটি সিলেক্ট করুন। তাহলে আপনার একাউন্টের সকল তথ্য এই ধাপে অটো ফিলআপ হয়ে যাবে।

এই ধাপে পরবর্তী কাজ হলো আপনি কোন ধর্মের, জন্ম তারিখ, পেশা, মোবাইল নম্বর, সিটিজেন ইনফরমেশন এগুলো যন্ত সহকারে ফিলআপ করা। সবকিছু করা হয়ে গেলে Save and Continue তে ক্লিক করুন।

ঠিকানা দেওয়া Address Input

ই পাসপোর্টের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ হলো ঠিকানা দেওয়া কারন এই ঠিকানা অনুযায়ী আপনার পুলিশ ভেরিফিকেশন হবে। ঠিকানা দুই ধাপে থাকে Permanent Address ও Present Address।

ঠিকানা দেওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমেই আপানর গ্রামের নাম তারপর পোস্ট অফিস এরপর উপজেলা ও জেলা সিলেক্ট করতে হবে। আপনার স্থায়ী ঠিকানা ও বর্তমান ঠিকানা যদি এক হয় তাহলে শুধু স্থায়ী ঠিকানা দিয়ে as a same permanent address বাটনে ক্লিক করে দিতে হবে। আর যদি ভিন্ন হয় তাহলে দুটোই উল্লেখ করতে হবে।

মনে রাখতে হবে address দুই জায়গার হলে দুই জায়গাতেই পুলিশ ভেরিফিকেশন হবে।

আইডি ডকুমেন্টস

ই পাসপোর্টের পরবর্তী ধাপ হলো আইডি ডকুমেন্টস। যদি আপনি এর আগে কোন পাসপোর্ট করে থাকে তাহলে এই পর্যায়ে আপনাকে সেই পাসপোর্টের তথ্য ফিলআপ করে দিতে হবে। আর আপনি যদি একবারে নতুন আবেদন করে থাকেন। তাহলে i Don’t have id documents অপশনে ক্লিক করে save and continue বাটনে ক্লিক করুন।

পিতা মাতার তথ্য ইনপুট করা (Parental information)

এ পর্যায়ে আপনাকে আপনার মাতাপিতার তথ্য পাসপোর্ট ফরমে দিতে হবে আপনি যদি প্রাপ্ত বয়স্ক হউন তাহলে আপনার এনআইডি অনুযায়ী আপনার মা বাবার নাম পেশা উল্লেখ করুন। তাদের এন আইডি নম্বর অপশনটি অপশনাল হওয়ায় এনআইডি নাম্বার না দিলেও চলবে।

See also  ই পাসপোর্ট চেক করার নিয়ম, বিভিন্ন পাসপোর্ট স্ট্যাটাস এর অর্থ ও ব্যাখ্যা , BD Passport Status Details

তবে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের মাতা পিতার এনআইডি নম্বর দেওয়া বাধ্যতামূলক।

স্পাউস ইনফরমেশন বা বৈবাহিক অবস্থা

এই অপশন থেকে আপনি বিবাহিত হলে আপনার স্ত্রীর যাবতীয় তথ্য তার NID অনুসারে পূরন করুন। আর আপনি যদি অবিবাহিত হউন তাহলে এই অপশন থেকে Single সিলেক্ট করুন। একি রকম ভাবে ডিভোর্স হলে তা উল্লেখ করতে হবে। তারপর save and continue বাটনে ক্লিক করতে হবে।

জরুরি যোগাযোগ Emergency Contact

ইমারজেন্সি যোগাযোগ করার জন্য আপনি ব্যতিত অন্য কারো তথ্য দিতে হবে এবং তার সাথে আপনার কি সম্পর্ক তার নাম ঠিকানা তার ফোন নাম্বার তার এনআইডি এ পর্যায়ে উল্লেখ করতে হবে।

সাধারণ জরুরি কোন প্রয়োজনে আবেদনকারীর নাম্বারে যোগাযোগ করা না গেলে জরুরি ভাবে ইমারজেন্সি নাম্বারে যোগাযোগ করা হয়ে থাকে।

পাসপোর্ট অপশন

এই ধাপে ই পাসপোর্টের ধরন নির্বাচন করা হয়ে থাকে। আপনি কত বছরের জন্য কত পৃষ্ঠার পাসপোর্ট নিবেন তা পাসপোর্ট অপশন হতে নির্বাচন করা হয়ে থাকে। মনে রাখা ভাল পাসপোর্ট এর পৃষ্ঠা ও মেয়াদ এই দুইটার উপর নির্ভর করে পাসপোর্টের ফি।

ই-পাসপোর্ট ডেলিভারির ধরন

এই ধাপে আপনি কিভাবে কোন ধরনের ডেলিভারিতে ই পাসপোর্ট নিতে চান তা সিলেক্ট করতে হবে। ই পাসপোর্ট মূলত তিনটি পর্যায়ে ডেলিভারি হয়ে থাকে।

Regular Delivery
Express delivery
Super Express delivery

Regular Delivery

ই পাসপোর্টের Regular Delivery তে মূলত ২১ কর্ম দিবসের মধ্যে পাসপোর্ট ডেলিভারি দেয়া হয়ে থাকে।

Express delivery

Express delivery তে ই পাসপোর্ট ৭-১০ দিনের মধ্যে ডেলিভারি দেওয়া হয়ে থাকে।

Super Express delivery

Super Express delivery তে ই পাসপোর্ট অনলাইনে করা যায় না তার জন্য আপনাকে পাসপোর্ট অফিসে সরাসরি যোগাযোগ করতে হবে এবং সাথে করে pre police verification নিয়ে যেতে হবে।

ই পাসপোর্টের ফি ডেলিভারি উপরও নির্ভর করে।

ই পাসপোর্ট ফি প্রদান

ই পাসপোর্টের ফি দুইটি মাধ্যমে দেওয়া যায় একটি হলো অনলাইন আরেকটি হলো অফলাইনের মাধ্যমে।

অনলাইনে ই পাসপোর্ট ফি প্রদান

অনলাইনে ekpay এর মাধ্যমে মোবাইল ব্যাংকিয়ের মাধ্যমে ই-পাসপোর্ট ফি প্রদান করা যায়। মোবাইল ব্যাংকিং ছাড়াও অনলাইন বিভিন্ন ব্যাংকের মাস্টার ও ভিসা কার্ড দিয়ে ই পাসপোর্ট ফি প্রদান করা যায়।

অফলাইনে ই পাসপোর্ট ফি প্রদান

অফলাইনে এ চালান ও ই চালানের মাধ্যমে বাংলাদেশের সকল সরকারি ও প্রাইভেট ব্যাংক থেকে পাসপোর্টের ফি প্রদান করা যায়।

E-passport Application Summary ও Application Copy Download

ই পাসপোর্টের ফি প্রদান হয়ে গেলে আপনাকে আবেদনের কপি এবং আবেদনের সামারি কপি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিতে হবে। পরবর্তী তে শিডোল অনুযায়ী পাসপোর্ট অফিসে সকল কাগজপত্র সহ আবেদন জমা দিতে হবে।

পাসপোর্ট সংগ্রহ করা

e passport এর সর্বশেষ ধাপ হলো আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস হতে পাসপোর্ট সংগ্রহ করা। সাধারণত পুলিশ ক্লিয়ারেন্স ওকে তাকলে নির্ধারতি সময়ের মধ্যে পাসপোর্ট ইস্যু হয়ে যায় ফলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আবেদনকারীর মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে বলা হয় এবং আবেদন কপি নিয়ে পাসপোর্ট অফিস থেকে পরবর্তীতে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হয়।

E-passports status Check

Online এ e-passport portal এর হোম পেইজ থেকে status Check অপশনে ক্লিক করে ই পাসপোর্টের সকল কিছু চেক করা যাবে। এর মাধ্যমে ই পাসপোর্টের আবেদন থেকে শুরু করে প্রিন্ট হয়ে হাতে পাওয়া পর্যন্ত পাসপোর্টের সকল পর্যায় ট্রাকিং করা যাবে।

অনালইনে ই পাসপোর্ট চেক করার জন্য ই পাসপোর্টের ওআইডি বা Online Reg id অথবা Application id ব্যবহার করে ই পাসপোর্টের সর্বশেষ অবস্থা হালনাগাদ করা যায়।

ই পাসপোর্ট সম্পর্কিত FAQ

ই পাসপোর্টের নিয়ে আপনাদের যাত ধরনের জিজ্ঞেসা আছে সবকিছুর সংক্ষিপ্ত উত্তর পাবেন এখানে।

ই পাসপোর্ট করতে কত টাকা লাগে ২০২৩?

ই পাসপোর্টের জন্য সর্বনিম্ন ৪০২৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১৩৮০০ টাকা লাগে থেকে। তব সবকিছু নির্ভর করে পাসপোর্টের ধরনের উপর।

জন্ম নিবন্ধ দিয়ে পাসপোর্ট করা যাবে কি না?

হ্যাঁ জন্ম নিবন্ধন দিয়ে পাসপোর্ট করা যায়।

ই পাসপোর্ট করার জন্য কি কি প্রয়োজন?

ই পাসপোর্ট করার জন্য জন্ম নিবন্ধন অথবা জাতীয় পরিচয়পত্রের প্রয়োজন হয়ে থাকে।

পাসপোর্টের পুলিশ ভেরিফিকেশন কত দিন পর হয়?

পাসপোর্টের পুলিশ ভেরিফিকেশন আবেদন করার ১-১০ দিনের মধ্যে কমপ্লিট হয়ে থাকে।

পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে?

পাসপোর্ট করতে নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র লাগে জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলে নিজের জন্ম নিবন্ধন এবং মাত পিতার জাতীয় পরিচয়পত্র লাগে।

জন্ম নিবন্ধন দিয়ে ই পাসপোর্ট করা যাবে কি না?

হ্যা জন্ম নিবন্ধন দিয়ে ই পাসপোর্ট করা যাবে।

ই পাসপোর্টের টাকা জমা দেওয়ার নিয়ম

ই পাসপোর্টের টাকা অনলাইনে এবং অফলাইনে এই দুই পদ্ধতিতে জমা দেওয়া যায়।

আর্জেন্ট পাসপোর্ট করার নিয়ম

আর্জেন্ট বা জরুরি পাসপোর্ট করতে হলে সকল ধরনের ডকুমেন্টস ও পুলিশ ক্লিয়ারেন্স নিয়ে আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসে আবেদন করতে হয়।

Mrp to e-passport কিভাবে করব?

এমআরপি টু ই পাসপোর্ট করতে হলে আপনাকে ই পাসপোর্টের মতোই আবেদন করতে হবে এবং আইডি ডকুমেন্টস এর জায়গায় আপনার এমআরপি পাসপোর্টের তথ্য দিয়ে দিলেই হবে।

পাসপোর্টের আবেদন ভুল হলে করনীয় কি?

পাসপোর্টের আবেদন ভুল হলে পাসপোর্টের আবেদন ফি দেওয়ার আগ পর্যন্ত সেটি সংশোধন করা যাবে। তবে আবেদন ফি দিয়ে দিলে আর সংশোধনের সুযোগ পাবেন না তবে চাইলে নতুন করে পাসপোর্টের আবেদন করা যাবে তবে আবেদন ফি আবার নতুন করে জমা করতে হবে।

 

Sarker Tahsin

Hello friends, my name is Imon Miah, I am the Writer and Founder of this blog Infolinebd and share all the information related to Blogging, SEO, Internet, Sports news, Review, Make Money Online, News and Technology through this website. Know for infolinebd about

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page