বাংলাদেশে আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, Emiliano Martinez is coming to Bangladesh

বাংলাদেশে আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, Emiliano Martinez is coming to Banglades

বাংলাদেশে আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, Emiliano Martinez is coming to Bangladesh
বাংলাদেশে আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, Emiliano Martinez is coming to Bangladesh

এমিলিয়ানো মার্তিনেজকে বাংলাদেশে আনতে বেশ কটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শতদ্রু দত্তর আলোচনা চলছে। কাজ চলছে ঢাকায় তাঁর কার্যক্রম চূড়ান্ত করা নিয়েও। আপাতত ঠিক হয়ে আছে, আগামী ৩ জুলাই ভোরে এমিলিয়ানো মার্তিনেজ বাংলাদেশের ঢাকায় এসে নামবে। সেই দিনটা ঢাকায় থেকে পরদিন সকালে যাবেন ৪ জুলাই কলকাতায় যাবেন। বাংলাদেশে আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, Emiliano Martinez is coming to Bangladesh

ভারতের মোহামেডান ক্লাবের সাথে চুক্তি করে আগামী ৪ জুলাই কলকাতায় আসার কথা এমিলিয়ানো মার্টিনেজের। ভারতের ক্রীড়া উদ্যোক্তা শতদ্রু দত্ত জানায় আমি কলকাতায় আসার জন্য কথা ব’লে মার্টিনেজ নিজ থেকে বলে বাংলাদেশে যেতে ইচ্ছে তার । শতদ্রু দত্ত আরও নিশ্চিত করে যে আগামী ৩ জুলাই ঢাকায় আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।

শতদ্রু দত্ত বললেন,

মার্তিনেজের বাংলাদেশে আসতে খুব আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমি শুরু মাত্র কলকাতায় আনার জন্য মার্তিনেজের সাথে চুক্তি করার কথা বললাম । ও নিজে থেকেই বলল, “আমি বাংলাদেশেও যেতে চাই। ওখানে আমার ও আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের অনেক ভক্ত আছে।”

এরপর আমি বাংলাদেশেও বিভিন্ন স্পনসর প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করি। স্পনসর প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি হলে ৩ জুলাই ভোর বেলায় বাংলাদেশের ঢাকায় আসছে এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।

এর আগে কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২২ শেষ করে জুন- জুলাই মাসে আর্জেন্টিনারের পুরো দল বাংলাদেশে আসার কথা ছিল কিন্তু বাংলাদেশের ভেন্যূর কারণে ভক্তদের স্বপ্ন থেকেই গেলো। বাংলাদেশের মাটিতে ২০১১ সালের থেকে আলাদা  মেসিকে দেখতে চেয়েছিল অনেকেই। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন থেকে ভামোসের এই ট্রুরটি বাদ দিতে হয়েছে। এখন আবার শোনা যাচ্ছে বাংলাদেশ সফরে আসবে আর্জেন্টিনার খেলোয়াড় গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।

আর্জেন্টিনারের হাতে কোনো দিন হয়তো বিশ্বকাপের ট্রফির ছোয়া লাগতো না, তা সম্ভব হয়েছে আর্জেন্টাইন তারকা গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজের জন্য। ৩৬ বছর পর প্রথম বারের মতো মেসির হাতে ধরা দেয় ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ। আর্জেন্টিনারের কোচ সহ খেলোয়াড় গণ্যও কাউকে হতাশা করেনি। মেসি – ডিমারিয়াদের কঠিন চেষ্টাই তৃতীয় স্টারের দেখা পায় এই দলটি। দলের হয়ে বিশ্বকাপ মঞ্চে সবচেয়ে বেশি দায়িত্ব পালন করেছে মার্টিনেজ।

See also  ম্যান সিটি বনাম ইন্টার মিলান সময়সূচি , স্কোয়াড, লাইভ, মিলান বনাম সিটি - এর পরিসংখ্যান

ফুটবল বিশ্বকাপের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আর্জেন্টাইন গোলরক্ষকের সেভিং দিয়ে সকলের মন রক্ষা করেছে Martinez’s. সৌদি সাথে প্রথম ম্যাচের খেলা দেখে সবাই হয়তো ভেবেছিল গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে যা ভামোস। কথা আছে না হারের পরেই জয়ের সাধ বেশি। সৌদি আরবের সাথে প্রথম ম্যাচ হারাপ পর সংবাদমাধ্যমে লিওনেল মেসি বলেছিলেন,

`আমরা ফাইনাল খেলবো আমাদের উপর ভরসা রাখুন আপনাদের হতাশ করবো না,

ভক্তরা মেসি কথায় পুরো আশ্বাস দিয়েছিল। তাইতো পরের ম্যাচগুলোতে আগের মতো জলে উঠেছিল মেসি বাহিনী।

বিশ্বকাপ কোয়ান্টার ফাইনালের সেই সেভিংয়ের কথা তো সকলের মনে আছে মার্টিনেজের। আর্জেন্টিনা কোয়ার্টার ফাইনালে নেদারল্যান্ডসের সাথে মুখোমুখি হয়। সেই ম্যাচ ছিল রোমাঞ্চে ভরপুর। প্রথমে মলিনা ও মেসির গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। পরে খেলা শেষ হওয়ার আগেই নেদারল্যান্ডস দুই গোলে সমতাই চলে আসে। পরবতীতে খেলা হয় পেনাল্টিতে। আর সেই ম্যাচে একমাত্র এমিলিয়ানো মার্টিনেজের কারনে জয় পায় আর্জেন্টিনা।

কাতার ফুটবল বিশ্বকাপের ফাইনালে জিতানোর কারিগরও ছিল এমি মার্টিনেজ। তার সব অসাধারণ ক্লিয়ারেন্সে ফাইনালে ফ্রান্সকে হারিয়ে গোল্ডেন গ্লাভস জিতে তিনি নিজে সাথে তো গৌরব ময় ট্রফি ছিল। আর এই বিশ্বকাপের যাত্রা সকলের কাছে তুলে ধরতে বাংলাদেশ ও ভারতে আসছে এমিলিয়ানো মার্তিনেজ।

স্পনসর জড়িয়ে গেলে ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশেও জায়গা হবে এই গোলরক্ষকের। ইতিমধ্যে কলকাতার ক্লাব মোহনবাগানের উৎসবের কোনো কমতি নেয় বিশ্বকাপ জয়ী খেলোয়াড় আসবে বলে। বাংলাদেশের আয়োজন ও কিছু কম হবে না।  এর একটি কারণ হল বাংলাদেশ আর্জেন্টিনারের ভক্তরা মন জয় করেছে পুরো ফুটবল প্রেমিদের।

Sarker Tahsin

Hello friends, my name is Imon Miah, I am the Writer and Founder of this blog Infolinebd and share all the information related to Blogging, SEO, Internet, Sports news, Review, Make Money Online, News and Technology through this website. Know for infolinebd about

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page