ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে
ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে:- ফ্রঁস ফুতবোল থেকে প্রতি বছর খেলোয়াড়দের একটি পুরুষ্কার প্রদান করে থাকে, যাকে আমরা ব্যালন ডি অর (ballon d’or) হিসাবে জানি। ফ্রান্সের ভাষায় যাকে বালোঁ দর ডাকে। ফুটবলের প্রাচীন পুরুষ্কার হিসাবে ব্যালন ডি’ অর সবচেয়ে আলাদা ও অন্যতম। প্রত্যেক বছর ফুটবল প্লেয়ারা তাকিয়ে থাকে এই ব্যালন ডি অর তালিকা তে। সব ফুটবলের ইচ্ছে ক্যারিয়ার জীবনে একবার হলেও যেন ব্যালেন ডি অর পুরুষ্কার জিততে পারে। কোন ফুটবল খেলোয়াড় ক্যারিয়ারে ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে তার একটা তালিকা নিচে দেওয়া হলো।

ব্যালন ডি অর কি

প্রতি বছর ব্যালন ডি অর তালিকা প্রকাশ করার সাথে সাথে অনেকেই জানতে চাই, আসলে ব্যালন ডি অর কি? উত্তর ব্যালেন ডি অর হলো সোনার বল, যা প্রথম বারের মতো দেওয়া চালু হয় ১৯৫৬ সালে। সেই প্রাচীন কাল থেকেই এই বলোঁ দর পুরুষ্কারের মূল্য মর্যাদায় ঠাসা। তবে Ballon d’Or পুরুষ্কারের জনপ্রিয়তা দেখে ফিফা ২০১০ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ফিফা বর্ষসেরা পুরষ্কার হিসাবে স্বাক্ষর করায়। পরে এর নাম রাখা হয় ফিফা বলোঁ দর। ২০১৬ সালে ফিফার সাথে চুক্তি শেষ হলে পুনরায় বলোঁ দর নামে ফিরে আসে।

ফ্রান্সের ক্রীড়াবিদ লেখক সাংবাদিক গাব্রিয়েল আনো (Gabriel Hanot) এই ব্যালেন ডি অর পুরুষ্কার দেওয়ার কথা প্রথম চিন্তা করে। প্রথম দিকে ১৯৫৬ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত সাংবাদিকদের ভোটাভোটির মাধ্যমে নির্বাচন করা হতো ব্যালেন ডি অর বিজয়ীকে। পরবর্তীতে ২০০৭ সালে প্রতিপক্ষ দলের অধিনায়কে ভোটের দায়িত্ব দেওয়া হয়। প্রাচীরে ব্যালেন ডি অর শুধু মাত্র ইউরোপীয় খেলোয়াড়দের প্রদান করা হত, কিন্তু ১৯৯৫ সাল থেকে ইউরোপ ক্লাব ফুটবল ও আন্তর্জাতিক ফুটবলের মাঝে ব্যালেন ডি অর পুরুষ্কার দেওয়া হয়। পুরো বিশ্বের খেলোয়াড়দের এই পুরুষ্কারের আওতায় আনা হয়।

ব্যালন ডি অর কি দিয়ে তৈরি

ফ্রঁস ফুতবোল ও ক্রীড়াবিদ থেকে প্রদান করা ব্যালেন ডি অর কি দিয়ে তৈরি তা সকলে জানতে চাই? ব্যালন ডি’অর যার অর্থ “সোনার ফুটবল। বলোঁ দর বা সোনার ফুটবল স্বর্ণ দিয়ে তৈরি কিন্তু পুরোটা স্বর্ণের না। ব্যালেন ডি অর পুরুষ্কার ফুটবলের মতো হওয়াই এটা বানানোর সময় নিচে গোল আকার পাত ব্যবহার করা হয়। প্রথমে একটি আয়তকার পিতলকে হাতুড়ি দিয়ে দুই ভাগে বল আকারে করা হয়। এরপর এটাকে পালিশ ও খোদাইকারী নকশা করে। ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ ব্যবহার করা হয় ব্যালন ডি অর তৈরি করতে।তৈরির পর ওজন দাঁড়ায় ৫ কেজি এবং প্রশস্ত ৩১ সেন্টিমিটার। এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তৈরি হয় ফুটবলারের স্বর্নের বল ব্যালন ডি অর।

See also  সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২৩ সেমিফাইনাল সময়সূচি, দলের তালিকা

ব্যালন ডি অর এর মূল্য কত

ফ্রান্স ক্রীড়াবিদ কৃতিক প্রদান করা সোনার বল বা ব্যালন ডি অর এর মূল্য খুবি কম। এই পুরুষ্কারটি মূলত সম্মানের সাথে প্রাচীন পুরুষ্কার হিসাবে দেওয়া হয়, তাই এটার মূল্য নিয়ে কেউ তেমন চিন্তা করে না। ব্যালন ডি অর এর মূল্য ৩,৫০০ মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশের টাকায় ৩ লক্ষ্য ৯২ হাজার টাকা প্রায়। ডলারের উপর নির্ভর করে দেওয়া হয়েছে ব্যালেন ডি অর এর মূল্য।

ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

নং বছর দেশ খেলোয়াড়  ক্লাব
২০২২ ফ্রান্স করিম বেনজেমা রিয়াল মাদ্রিদ
২০২১ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি পিএসজি
২০২০ কোভিড নাইন্টিনের সমস্যা ছিল কোভিড নাইন্টিনের সমস্যা ছিল কোভিড নাইন্টিনের সমস্যা ছিল
২০১৯ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
২০১৮ ক্রোয়েশিয়া লুকা মডরিচ রিয়েল মাদ্রিদ
২০১৭ পতুর্গাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো রিয়েল মাদ্রিদ
২০১৬ পতুর্গাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো রিয়েল মাদ্রিদ
২০১৫ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
২০১৪ পতুর্গাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো রিয়েল মাদ্রিদ
১০ ২০১৩ পতুর্গাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো রিয়েল মাদ্রিদ
১১ ২০১২ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
১২ ২০১১ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
১৩ ২০১০ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
১৪ ২০০৯ আর্জেন্টিনা লিওনেল মেসি বার্সেলোনা
১৫ ২০০৮ পতুর্গাল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
১৬ ২০০৭ ব্রাজিল কাকা এসি মিলান
১৭ ২০০৬ ইতালি ফাবিও কান্নাভারো রিয়েল মাদ্রিদ
১৮ ২০০৫ ব্রাজিল রোনালদিনহো বার্সেলোনা
১৯ ২০০৪ ইউক্রেন আন্দ্রেই শেভচেঙ্কো এসি মিলান
২০ ২০০৩ চেক প্রজাতন্ত্র পাভেল নেদভেদ ইয়ুভেন্তুস
২১ ২০০২ ব্রাজিল রোনালদিনহো রিয়েল মাদ্রিদ
২২ ২০০১ ইংল্যান্ড মাইকেল ওয়েন লিভারপুল
২৩ ২০০০ পতুর্গাল লুইস ফিগো রিয়েল মাদ্রিদ
২৪ ১৯৯৯ ব্রাজিল রিভালদো বার্সেলোনা
২৫ ১৯৯৮ ফ্রান্স জিনেদিন জিদান ইয়ুভেন্তুস
২৬ ১৯৯৭ ব্রাজিল রোনালদিনহো ইন্টার মিলান
২৭ ১৯৯৬ জার্মানি মাথিয়াস সামার বরুশিয়া ডর্টমুন্ড এফসি
২৮ ১৯৯৫ লাইবেরিয়া জর্জ উইয়াহ এসি মিলান
২৯ ১৯৯৪ বুলগেরিয়া হ্রিস্টো স্টইচকভ বার্সেলোনা
৩০ ১৯৯৩ ইতালি রবার্তো ব্যাজিও ইয়ুভেন্তুস
৩১ ১৯৯২ নেদারল্যান্ডস মার্কো ভ্যান বাস্টেন এসি মিলান
৩২ ১৯৯১ ফ্রান্স জিন পিয়েরে পাপিন ওলাঁপিক দ্য মার্সেই
৩৩ ১৯৯০ জার্মানি লোথার ম্যাথাউস ইন্টার মিলান
৩৪ ১৯৮৯ নেদারল্যান্ডস মার্কো ভ্যান বাস্টেন এসি মিলান
৩৫ ১৯৮৮ নেদারল্যান্ডস মার্কো ভ্যান বাস্টেন এসি মিলান
৩৬ ১৯৮৭ নেদারল্যান্ডস রুড হুলিট এসি মিলান
৩৭ ১৯৮৬ সোভিয়েত ইউনিয়ন ইগর বেলানভ ডায়নামো কিয়েভ
৩৮ ১৯৮৫ ফ্রান্স মিশেল প্লাতিনি ইয়ুভেন্তুস
৩৯ ১৯৮৪ ফ্রান্স মিশেল প্লাতিনি ইয়ুভেন্তুস
৪০ ১৯৮৩ ফ্রান্স মিশেল প্লাতিনি ইয়ুভেন্তুস
৪১ ১৯৮২ ইতালি পাওলো রসি ইয়ুভেন্তুস
৪২ ১৯৮১ ওয়েস্ট জার্মানি কার্ল-হাইন্ৎস রুমেনিগে বায়ার্ন মিউনিখ
৪৩ ১৯৮০ ওয়েস্ট জার্মানি কার্ল-হাইন্ৎস রুমেনিগে বায়ার্ন মিউনিখ
৪৪ ১৯৭৯ ইংল্যান্ড কেভিন কিগান হ্যামবার্গার এফসি
৪৫ ১৯৭৮ ইংল্যান্ড কেভিন কিগান হ্যামবার্গার এফসি
৪৬ ১৯৭৭ ডেনমার্ক অ্যালান সিমনসেন বরুশিয়া এম মনচেনগ্লাদবাখ
৪৭ ১৯৭৬ ওয়েস্ট জার্মানি ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার বায়ার্ন মিউনিখ
৪৮ ১৯৭৫ সোভিয়েত ইউনিয়ন ওলেগ ব্লোখিন  ডায়নামো কিয়েভ
৪৯ ১৯৭৪ নেদারল্যান্ডস জোহান ক্রুইফ বার্সেলোনা
৫০ ১৯৭৩ নেদারল্যান্ডস জোহান ক্রুইফ বার্সেলোনা
৫১ ১৯৭২ ওয়েস্ট জার্মানি ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার বায়ার্ন মিউনিখ
৫২ ১৯৭১ নেদারল্যান্ডস জোহান ক্রুইফ আজাকস
৫৩ ১৯৭০ ইস্ট জার্মানি গের্ড ম্যুলার বায়ার্ন মিউনিখ
৫৪ ১৯৬৯ ইতালি জিয়ান্নি রিভারা এসি মিলান
৫৫ ১৯৬৮ নর্থ আইল্যান্ড জর্জ বেস্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
৫৬ ১৯৬৭ হাংগেরি ফ্লোরিন ফেরেন্তসভারোসি তোরনা
৫৭ ১৯৬৬ ইংল্যান্ড ববি চার্লটন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
৫৮ ১৯৬৫ পতুর্গাল ইউসেবিও বেনফিকা
৫৯ ১৯৬৪ স্কটল্যান্ড ডেনিস আইন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
৬০ ১৯৬৩ সোভিয়েত লেভ ইয়াশিন ডায়নামো মস্কো
৬১ ১৯৬২ চেকোস্লোভাকিয়া জোসেফ মাসোপুস্ট দুকলা প্রাগ
৬২ ১৯৬১ ইতালি ওমর সিভোরি ইয়ুভেন্তুস
৬৩ ১৯৬০ স্পেন লুইস সুয়ারেজ বার্সেলোনা
৬৪ ১৯৫৯ স্পেন আলফ্রেদো দি স্তেফানো রিয়েল মাদ্রিদ
৬৫ ১৯৫৮ ফ্রান্স রেমন্ড কোপা রিয়েল মাদ্রিদ
৬৬ ১৯৫৭ স্পেন আলফ্রেদো দি স্তেফানো রিয়েল মাদ্রিদ
৬৭ ১৯৫৬ ইংল্যান্ড স্ট্যানলি ম্যাথুজ ব্লক পুল
See also  অনূর্ধ্ব ২০ ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২৩ সময়সূচী

ব্যালন ডি অর লিস্ট আপডেট ২০২৩ জুন ২০ 

সর্বোচ্চ ব্যালন ডি’অর বিজয়ী ফুটবলারের নাম কি

সর্বোচ ব্যালন ডি’অর বিজয়ী ফুটবলার হলো আর্জেন্টাইন সুপার স্টার ও ফুটবল জাদুঘর লিওনেল মেসি। তিনি ৭ বার ব্যালেন ডি অর পুরুষ্কার পেয়েছে। লিওনেল মেসিই একমাত্র প্লেয়ার যে ৭ বার ফ্রান্সের দেওয়া বলোঁ দর ট্রফি পেয়েছে ।

সুপার ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে

১৯৮৯ সালে প্রথম বারের মতো সুপার ব্যালেন ডি অর দেওয়া হয়েছে। এই পুরুষ্কার প্রদান করা হয় ফরাসি ম্যাগাজিন ফ্রান্স ফুটবল থেকে, পূর্ববতী তিন দশকের সেরা ফুটবল খেলোয়াড়কে দেওয়া হয় সুপার ব্যালেন ডি অর। সকলের জানার ইচ্ছে সুপার ব্যালন ডি অর কে কতবার পেয়েছে, কিন্তু এই পুরুষ্কার পুরস্কারটি শুধুমাত্র একবার দেওয়া হয়েছে। আলফ্রেডো ডি স্টেফানো হচ্ছেন এই পুরস্কারের একমাত্র বিজয়ী।

মেসির ব্যালন ডি’অর কয়টি

১৯৫৬ সাল থেকে দেওয়া ব্যালেন ডি’অর পুরুষ্কার সবচেয়ে বেশি বার অর্জন করা ফুটবলার হলো লিওনেল মেসি। মেসি এই পর্যন্ত সাত বার ব্যালন ডি অর পুরুষ্কার পায়। বর্তমানে লিওনেল মেসির ৭টি ব্যালন ডি’অর রয়েছে।

নেইমারের ব্যালন ডি’অর কয়টি

ব্যালন ডি’অর তালিকায় মনোনীত পেলেও একবারও ব্যালন ডি অর পায়নি ব্রাজিলিয়ান তারকা প্লেয়ার নেইমার। তাই নেইমারের ব্যালন ডি’অর সংখ্যা ০।

পেলের ব্যালন ডি’অর কয়টি

সম্মানজনক পুরুষ্কার জিতেনি পেলে। পেলের ব্যালন ডি’অর একটাও নাই, কারণ বহুবার ব্যালন ডি অর তালিকা তে মনোনীত হলেও একবারও পায়নি এই পুরুষ্কার পেলে।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো কতবার ব্যালন ডি অর জিতেছে

সবচেয়ে বেশি বার নেওয়া ফুটবল প্লেয়ার লিওনেল মেসির পর সর্বোচ্চ দ্বিতীয় বার ব্যালন ডি অর পুরুষ্কার জিতে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তিনি ৫ বার ব্যালন ডি অর পুরুষ্কার পায়।

মেসি ও রোনালদোর কত ব্যালন ডি পেয়েছে

সবচেয়ে বেশি বার ব্যালেন ডি অর সম্মানজনক পুরুষ্কার জিতে লিওনেল মেসি সাত বার, এটাই ছিল ফুটবল ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বার ব্যালেন ডি অর বিজয়ী হওয়া খেলোয়াড়। এরপর পাঁচ বার ব্যালন ডি অর জিতে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে পর্তুগালের ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

প্রথম ব্যালন ডি অর জেতার সময় রোনালদো কার হয়ে খেলেছিলেন

পর্তুগালের ফুটবল রাজা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ২০০৮ সালে প্রথম ব্যালন ডি অর পুরুষ্কার পায়। সেই সময় রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে খেলছিলেন।

Sarker Tahsin

Hello friends, my name is Imon Miah, I am the Writer and Founder of this blog Infolinebd and share all the information related to Blogging, SEO, Internet, Sports news, Review, Make Money Online, News and Technology through this website. Know for infolinebd about

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page