Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে, ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে

Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে, ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে

Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে, ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে
Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে, ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে

Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে :-  বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দেখা ক্রীড়া টুনামেন্টের মধ্যে একটা হলো ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। যা নিয়ন্ত্রণ করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (ICC) ১৯৭৫ সালে প্রথম বার অনুষ্ঠিত হয় ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ১৯৭৫ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত এই টুনামের্ন্টে বহু দল চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতেছে । এরপূর্বে আইসিসির ক্রিকেট বিশ্বকাপ ৬০ ওভারে আয়োজন করা হয়তো ১৯৮৭ সালে যা পরিবর্তন করে ৫০ ওভার করা হয় এখনো তা চলমান রয়েছে।

আপনি যদি একজন ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রেমী হন তাহলে ঠিকভাবে এই সব ডকুমেন্ট সঠিক ভাবে জানার চেষ্টা করবেন। ওডিআই ফরম্যাটে বিশ্বকাপ প্রতি চার বছর পরপর আয়োজন করা হয়। Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে, ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে এই সব প্রশ্ন আপনার জন্য আবশ্যক হবে, আর তা না হলে কি করে প্রমান করবেন যে আপনি ক্রিকেট প্রেমি।

তাইতো কে কতবার ট্রফি নিয়েছে সেইসব খবর থাকছে এই আর্টিকেলে।

ODI ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে

নিচে ওয়ানডে বিশ্বকাপ প্রথম আসর থেকে এখনো পর্যন্ত কে কতবার নিয়েছে তার তালিকাসহ বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ১৯৭৫ প্রথম আসর

১৯৭৫ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপের প্রথম আসর অনুষ্ঠিত হয় ইংল্যান্ডের মাটিতে, পাঁচটা শহরের ৬ টি স্টেডিয়ামে সবগুলো ম্যাচ আয়োজন করা হয়। Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপের প্রথম আসরে আটটি (৮) দল অংশগ্রহণ করে।

প্রথম ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ ৬০ ওভারে আয়োজিত হয় ফাইনালে মুখোমুখি হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও অস্ট্রেলিয়া। ওয়েস্ট ইন্ডিজ আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬০ ওভারে সংগ্রহ করে ২৯১ রান তা তাড়া করতে নেমে অস্ট্রেলিয়া ২৭৮ রান করে অলআউট হয়ে যায়। ফলে প্রথম ওয়ানডে বিশ্বকাপ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৭ রানে চ্যাম্পিয়ন হয়।

Odi ক্রিকেট বিশ্বকাপ ১৯৭৯ দ্বিতীয় আসর

সাদা পোষাক ও লাল বোল দিয়ে শুরু হয় ৬০ ওভাবের ক্রিকেট বিশ্বকাপের দ্বিতীয় আসর। যেখানে প্রথম বারের মতোই কোনো নিয়ম পরিবর্তন না করে খেলা হয়। ক্রিকেট বিশ্বকাপের দ্বিতীয় আসর অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৯ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে। আগের ওয়ার্ল্ড কাপের দলগুলো অংশগ্রহণ করে।

৬০ ওভারের ফাইনালে মুখোমুখি হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম ইংল্যান্ড। যেখানে ক্যারিবিয়ানরা ঢানা দ্বিতীয় বার ফাইনালে পা রাখে আর ইংল্যান্ড প্রথম বার। ফাইমালে ব্যাটিং করে ২৮৬ রান সংগ্রহ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এই রান অতিক্রম করতে নেমে ১৯৪ স্কোর করে ১০ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। সেই সঙ্গে ৯২ রানে জয় পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এটা নিয়ে তারা দ্বিতীয় বার ওয়ানডে বিশ্বকাপ নিয়েছে।

ক্রিকেট বিশ্বকাপ ১৯৮৩ তৃতীয় আসর।

আইসিসির ক্রিকেট বিশ্বকাপ ঢানা তৃতীয় বারের মতো আয়োজন করে ইংল্যান্ড। এই টুনামের্ন্টে নাটকীয়তার কোনো ওভাব হয়নি কারণ ভারত ও জিম্বাবুয়ে সেই সময় তেমন ভালো খেলতে পারতো না কিন্তু দুই বার ক্রিকেট বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও একবার রানার্সআপ হওয়া দলকে হারিয়ে তাক লাগিয়ে দেয় ক্রিকেট বিশ্বকে।

See also  এশিয়া কাপ ২০২৩ যেসব চ্যানেলে দেখা যাবে?

১৯৮৩ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপের তৃতীয় আসরের ফাইনালে প্রথমবার উঠে ভারত ক্রিকেট দল প্রতিপক্ষ দল তখন পূর্বের চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্যারিবিয়ানরা প্রথমে টসে জিতে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়, ব্যাটিংয়ে নেমে ভারত ভালো পারফরম্যান্স না করতে পেরে ১৮৩ রানে অলআউট হয়ে যায়।

পরবর্তীতে ১৮৩ রান তাড়া করতে নেমে বৃষ্টি ভেজা মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং লাইনআপ ভেঙে পড়ে মাত্র ১৪০ রানে। ভারত প্রথম বার ওয়ানডে বিশ্বকাপের জয় পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৪৩ রানে।

ক্রিকেট বিশ্বকাপ ১৯৮৭ চতুর্থ আসর।

আইসিসির বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ৪র্থ আসর প্রথমবার ইংল্যান্ডের বাহিরে কোনো দেশ ভারত ও পাকিস্তানে আয়োজন করা হয় ১৯৮৭ সালে। ৬০ ওভারের খেলা প্রথম বার ওয়ানডে ফ্যারমেটে ৫০ ওভারে রুপান্তর করা হয় ১৯৮৭ সালে বিশ্বকাপের চতুর্থ আসরে। দুই দেশের ভিন্ন ২১টি মাঠে খেলা হয় বিশ্বকাপ ম্যাচগুলো।

ওয়ানডে বিশ্বকাপের চতুর্থ আসরে ফাইনালে মুখোমুখি হয় অস্ট্রেলিয়া বনাম ইংল্যান্ড। ম্যাচ শুরু হওয়ার পর ৫০ ওভারে ২৫৩ রান নেয় অস্ট্রেলিয়া। এই রানে ব্যাটিং করে ইংল্যান্ড নিজেদের উইকেট হারিয়ে চাপের মুখে পড়ে যায় ফলে অস্ট্রেলিয়া অনুকূলে চলে আসে ক্রিকেট ম্যাচ। ইংল্যান্ডকে ৭ রানে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে অস্ট্রেলিয়া।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ১৯৯২ পঞ্চম আসর।

ওয়ানডে বিশ্বকাপের পঞ্চম আসর অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯২ সালে যোথ্যভাবে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াতে। বরাবর আট দল এতে অংশ নিলেও ১৯৯২ সালে প্রথম বার ৯ ক্রিকেট দল এতে অংশগ্রহণ করেছে। আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো জয় পায় পাকিস্তান। পাকিস্তান ২৪৯ রান করে আগে এই রান তাড়া করতে নেমে ১০ উইকেট হারিয়ে বসে ইংল্যান্ড। পাকিস্তান ২২ রানে প্রথম বার ওয়ানডে বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়।

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ১৯৯৬ ষষ্ঠ আসর।

১৯৯৬ ক্রিকেট বিশ্বকাপ যা ছিল ৬ষ্ঠ আসর। ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাস্ট ৩টি দেশে (পাকিস্তান, ভারত ও শ্রীলঙ্কা) যৌথভাবে অনুষ্ঠিত করে থাকে আইসিসি। স্পনসর জড়িত কারণে এই টুনামের্ন্টে নাম রাখা হয় উইলস বিশ্বকাপ ১৯৯৬।

উইলস ওয়ার্ল্ড কাপের ষষ্ঠ সংস্করণে চূড়ান্ত ম্যাচে খেলতে নামে শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া। ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত পাঞ্জাবের লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। ২৪২ রানে টার্গেট দেয় অস্ট্রেলিয়া প্রথম ব্যাট করে। প্রায় ৪৭ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ইনিংস অতিক্রম করে শ্রীলঙ্কা। ওয়ানডে বিশ্বকাপে প্রথমবার শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে জয় পায়।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ১৯৯৯ সপ্তম আসর

ওয়ানডে ক্রিকেট টুনামের্ন্টের সপ্তম আসর অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৯ সালে যা আয়োজন করা হয় পাঁচটি ভিন্ন দেশে যেমন, স্কটল্যান্ড, নেদারল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, ওয়েলস ও ইংল্যান্ডে। এই পাঁচটা দেশের মধ্যে ১২ টা দল লড়াই করে চূড়ান্ত ম্যাচে মুখোমুখি হয় পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া।

১৯৯৯ সালে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত খেলায় শুরুটা রাগিয়ে রাখতে পারলো না পাকিস্তান মাত্র ৩৯ ওভারে অলউইকেট হারিয়ে ১৩২ করে রানের চাকা থামলো। এই রান অতিক্রম করে মাত্র ২০ ওভারে অস্ট্রেলিয়া সঙ্গে দ্বিতীয় শিরোপার দেখা পায় দলটা।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০০৩ অষ্টম আসর

ক্রিকেট বিশ্বকাপের ৮ম আসর আয়োজন করে তিনটি দেশ যৌথভাবে ( দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে এবং কেনিয়ায় ) আইসিসির বিশ্বকাপের ইতিহাসে ২০০৩ সালের আসরে সবচেয়ে বেশি ৫৪ ম্যাচ খেলে ১৪ টা দল।

সাউথ আফ্রিকা ওয়ার্ল্ড কাপের চূড়ান্ত ম্যাচে মুখোমুখি অস্ট্রেলিয়া ও ভারত এটা তাদের দ্বিতীয় দেখা ওয়ানডে বিশ্বকাপে। ভারত টসে জয় পেয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া পারফরম্যান্স করে ৫০ ওভারে ওয়ানডে বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি ৩৫৯ রান সংগ্রহ করে অস্ট্রেলিয়া। এই রান মুখা বেলা করার মতো ইন্ডিয়া দলে তেমন কেও ছিল না তাই ১০ উইকেট হারিয়ে ২৩৪ রান করে। অস্ট্রেলিয়া ১২৫ রানে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতেছে। এটা তৃতীয় ট্রফি জিতেছে অস্ট্রেলিয়া দলটা।

See also  বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ড সিরিজের সময়সূচি ২০২৩

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০০৭ নবম আসর

২০০৭ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজে। পূর্বের আসর থেকে ২টা দল বেশি (১৬) নিয়ে শুরু হয় ওয়ানডে বিশ্বকাপের নবম আসর। তবুও দল তুলনায় ম্যাচ কম খেলে টিমগুলো। ক্যারিবিয়ানে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত ম্যাচে মুখোমুখি শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া। শ্রীলঙ্কাকে ৫৩ রানে হারিয়ে ৪ ট্রফি জয় করে অস্ট্রেলিয়া।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০১১ দশম আসর

২০১১ সালে প্রথম বারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপের আসর অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশে সাথে যৌথভাবে ভারত ও শ্রীলঙ্কা। ২০১১ সালে দশম আসরের উদ্বোধনী খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ বনাম ভারতের মধ্যে ঢাকায় ১৯ ফেব্রুয়ারি শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম।

ফাইনালে মুখোমুখি শ্রীলঙ্কা ও ভারত। লঙ্কানরা আগে ব্যাটিং করে ২৭৪ করে ৫০ ওভারে। ৪৮. ২ বলে ২৭৭ রান করে ভারত। শ্রীলঙ্কাকে ৬ উইকেট হারায় ভারত।

২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ ১১ তম আসর

icc ক্রিকেট ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১১ তম আসর শুরু হয় ২০১৫ সালে যা দ্বিতীয় বার যৌথভাবে আয়োজন করে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। আসরে ১৪ টা দল অংশগ্রহণ করে রাউন্ড রবিন ও নক আউট পদ্ধতিতে হয় সবকয়টি ম্যাচ।

ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয় অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। দুই আয়োজক দেশেই ফাইনালে খেলে। নিউজিল্যান্ডে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৪৫ ওভারে ১৮৩ রান সংগ্রহ করে সেই রান তাড়া করতে নেমে খুব সহজে তা অতিক্রম করে ৭ উইকেট জয় নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০১৯ (১২ তম) আসর

২০১৯ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ আয়োজন করে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস। ইংল্যান্ডে এই নিয়ে পাঁচ বার আয়োজন করে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ফাইনালে মুখোমুখি হয় আগের আসরের রানার্সআপ দল নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড।

এর আগে অনেক বার ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালে পা রাখলেও ট্রফির সাদ গ্রহন করতে পারেনি ইংল্যান্ড ক্রিকেট টিম। চূড়ান্ত ম্যাচে ২৪১ রান করে দুই দল ফলে ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। সুপার ওভার টাই হয়, ইংল্যান্ড বাউন্ডারি গণনা (২৬-১৭) নিয়মে খেলায় জয়লাভ করে। ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপে প্রথম বারের মতো কাপ নেয় ইংল্যান্ড।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩ ( ১৩ তম) আসর

আইসিসির ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩ শুরু হবে ভারতে। খেলা শেষ হলে দেওয়া জবে ওয়ানড বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে।

ওয়ানডে বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে

ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপ কে কতবার নিয়েছে তা নিচে টেবিল আকারে দেওয়া হলো।

সাল  আয়োজক দেশ চ্যাম্পিয়ন স্কোর  রানার্সআপ স্কোর ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনাল স্কোর 
১৯৭৫ ইংল্যান্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৯১ অস্ট্রেলিয়া ২৭৪ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৭ রানে চ্যাম্পিয়ন
১৯৭৯ ইংল্যান্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৮৬ ইংল্যান্ড ১৯৪ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯২ রানে জিতেছে 
১৯৮৩ ইংল্যান্ড ভারত ১৮৩ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৪০ ভারত ৪৩ রানে জয় লাভ করে 
১৯৮৭ ভারত বনাম পাকিস্তানি অস্ট্রেলিয়া ২৫৩ ইংল্যান্ড ২৪৬ অস্ট্রেলিয়া ৭ রানে জয় পায়।
১৯৯২ অস্ট্রেলিয়া বনাম নিউজিল্যান্ড পাকিস্তানি ২৪৯ ইংল্যান্ড ২২৭ পাকিস্তানি  ১২ রানে চ্যাম্পিয়ন
১৯৯৬ পাকিস্তানি বনাম ভারত শ্রীলংকা ২৪৫ অস্ট্রেলিয়া ২৪১ শ্রীলংকা ৭ উইকেট জয় নিশ্চিত করে। 
১৯৯৯ ইংল্যান্ড অস্ট্রেলিয়া ১৩৩ পাকিস্তানি ১৩২ অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেট জয় নিশ্চিত করে। 
২০০৩ দক্ষিন আফ্রিকা অস্ট্রেলিয়া ৩৫৯ ভারত ২৩৪ অস্ট্রেলিয়া ১২৫ রানে জিতে।
২০০৭ ওয়েস্ট ইন্ডিজ অস্ট্রেলিয়া ২৮১ শ্রীলংকা ২১৫ অস্ট্রেলিয়া ৫৩ রানে জয় 
২০১১ ভারত বনাম বাংলাদেশ  ভারত ২৭৭ শ্রীলংকা ২৭৪ ভারত ৬ উইকেট চ্যাম্পিয়ন হয়।
২০১৫ অস্ট্রেলিয়া বনাম নিউজিল্যান্ড অস্ট্রেলিয়া ১৮৬ নিউজিল্যান্ড ১৮৩ অস্ট্রেলিয়া সাত উইকেট জয় লাভ করে। 
২০১৯ ইংল্যান্ড বনাম ওয়েলস  ইংল্যান্ড ২৪১ নিউজিল্যান্ড ২৪১ ২০১৯ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপে সুপার ওভারে জয় পায় ইংল্যান্ড 
২০২৩ ভারত

 

Sarker Tahsin

Hello friends, my name is Imon Miah, I am the Writer and Founder of this blog Infolinebd and share all the information related to Blogging, SEO, Internet, Sports news, Review, Make Money Online, News and Technology through this website. Know for infolinebd about

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page